কনডেন্সড মিল্ক দাম কত ২০২৪

হ্যালো,প্রিয় বন্ধুরা। কেমন আছেন সবাই। আশাকরি,সকলেই ভালো আছেন। আমরা আজকে আপনাদের সাথে ” কনডেন্সড মিল্ক দাম ” নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। আপনারা যারা  কনডেন্সড মিল্ক এর দাম, উপকারিতা ও অপকারিতা জানেন না। তাদের জন্য আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি শেয়ার করছি।

বর্তমান  সময়ে আমাদের দেশে ভেজাল পণ্যের অভাব নেই। আমাদের শরীরের জন্য পুষ্টিকর খাবার খাওয়া খুবই প্রয়োজন। আমরা আজকের এই আর্টিকেলটিতে কনডেন্সড মিল্ক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। কারণ, কনডেন্সড মিল্ক খুবই পুষ্টিকর একটি খাদ্য। এই কনডেন্সড মিল্ক শরীরের জন্য খুবই উপকারী।

কনডেন্সড মিল্ক দাম ২০২৪

কনডেন্সড মিল্ক ৪০০ গ্রামের দাম মাত্র ৳১০০ টাকা। কিন্তু! বর্তমান সময়ে বাজারে সব সময় পণ্যের দাম কম বেশি হয়ে থাকে। তাই, বাজার যাচাই করে প্রত্যেক জিনিস ক্রয় করা উচিত। তবে, কোম্পানিভেদে পণ্যের দামও ভিন্ন হয়ে থাকে। আপনাদের সুবিধার জন্য আমরা  বাংলাদেশের কয়েকটা কনডেন্সড মিল্ক দাম নিচে শেয়ার করছি।

কনডেন্সড মিল্ক (পরিমাণ)দাম কত
No. 1 Condensed Milk – 400gmBDT. 100 Tk
Starship Condensed Milk – 400gmBDT. 105 Tk
Danish Condense Milk – 397gmBDT. 105 Tk
CARNATIONS Milk Thailand – 405mlBDT. 149 Tk

আমরা উপরে বাংলাদেশে ব্যবহারিত জনপ্রিয় কয়েকটি কনডেন্সড মিল্ক এর ব্রান্ড ও দাম শেয়ার করেছি। আপনারা এই পণ্য গুলো এই দামে দারাজ থেকে ক্রয় করতে পারবেন।

কনডেন্সড মিল্কের পুষ্টি উপাদান

মানব দেহের পুষ্টির জন্য কনডেন্সড মিল্কের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ন। এতে, সাধারণত কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও ভিটামিন এ/ডি ইত্যাদি পুষ্টি উপাদান থাকে। যাহা, বাচ্চা ও প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। আপনাদের সুবিধার জন্য আমরা নিচে কনডেন্সড মিল্কের পুষ্টি উপাদান নিচে শেয়ার করছি।

  • শক্তি – ৩৭০ ক্যালোরি (37%)
  • চর্বি –  ৪ গ্রাম (8%)
  • কার্বোহাইড্রেট – ৫৬ গ্রাম (56%)
  • প্রোটিন – ৪ গ্রাম (8%)
  • ক্যালসিয়াম – ৩০০ মিলিগ্রাম (30%)
  • ফসফরাস – ২০০ মিলিগ্রাম (29%)
  • পটাশিয়াম – ২০০ মিলিগ্রাম (9%)
  • ভিটামিন এ – ২00 মিলিগ্রাম (20%)
  • ভিটামিন ডি – ৪ গ্রাম (1%)
  • থায়ামিন – ০.০৪ মিলিগ্রাম (3%)
  • রিবোফ্লাভিন – ০.১২ মিলিগ্রাম (7%)
  • নিয়াসিন – ০.০৬ মিলিগ্রাম (4%)
  • ভিটামিন বি ১২ – ০.১ মাইক্রোগ্রাম (17%)

আপনারা যারা উপরের পুষ্টি গুন গুলো দেখছেন। এগুলো সাধারণত কনডেন্সড মিল্ক এর পুষ্টিগুন।

কনডেন্সড মিল্ক এর উপকারিতা

আপনারা সবাই জানেন কনডেন্সড মিল্ক সাধারণত দুধ চা বানানোর কাজে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু! এটা সঠিক নয়। দুধ চা ছাড়া এটি আরো বিভিন্ন কাজে লাগানো হয়। আমরা এবার আপনাদের সাথে কনডেন্সড মিল্ক এর উপকারিতা শেয়ার করব। কারণ, আপনাদের সবার জানা উচিত এটার উপকারিতা নিয়ে।

  • কনডেন্সড মিল্ক ক্যালসিয়ামের একটি উৎস। যা বাচ্চাদের ও প্রাপ্ত বয়স্কদের হাড় ও দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে।
  • এছাড়া, এই মিল্ক বা দুধে প্রচুর পরিমাণে প্রটিন থাকে। যা প্রত্যেক ব্যাক্তির পেশী বৃদ্ধির কাজে সাহায্য করে থাকে।
  • কনডেন্সড মিল্কে ভিটামিন এ, ডি এবং বি ১২ থাকে, যা  বাচ্চাদের ও প্রাপ্ত বয়স্কদের বিভিন্ন শারীরিক কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে থাকে।

কনডেন্সড মিল্ক এর অপকারিতা

আপনারা সবাই জানেন কম বেশি প্রত্যেক জিনিস বা পণ্যের কিছু খারাপ কিংবা ভালো দিক থাকে। ঠিক তেমনি কনডেন্সড মিল্ক এর কিছু অপকারিতা রয়েছে। আপনাদের সুবিদার জন্য আমরা নিচে কনডেন্সড মিল্ক এর অপকারিতা শেয়ার করা হল।

  • যাদের, দুধ খাওয়ার ফলে অ্যালার্জি জনিত সমস্যা হয়। তারা, কনডেন্সড মিল্ক খাবেন না।
  • কনডেন্সড মিল্ক অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে, শরীরের ওজন বৃদ্ধি এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়তে পারে।
  • যাদের শরীরে ডায়াবেটিস রয়েছে। তারা এটি কখনো খাবেন না। কারণ, এটি খাওয়ার ফলেডায়াবেটিসেএর পয়েন্ট বেড়ে যেতে পারে।
  • এছাড়া, এটি শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের দাঁতের ক্ষয়, পুষ্টিগত ঘাটতি এবং স্থূলতার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।
  • কিছু কিছু কনডেন্সড মিল্ক এ কৃত্রিম স্বাদ, রং মিশায়, এতে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে।

শেষ কথাঃ

আশাকরি, আপনারা খুব সহজেই কনডেন্সড মিল্ক এর দাম সম্পর্কে ও কনডেন্সড মিল্কের বিভিন্ন তথ্য সম্বন্ধে বিস্তারিত একটি ধারনা পেয়েছেন। তাই, আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে যদি, উপকৃত হন। তাহলে, পোস্টটি অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। আর! কোন কিছু বুঝতে অসুবিধে হলে, নিচের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করতে ভূলবেন না। নিত্য-নতুন টিপস পেতে এ প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন। ধন্যবাদ

4/5 - (2 votes)

Leave a Comment